আমরা

‘বিজ্ঞানপ্রিয়’ বাংলাদেশের একটি অনন্য বিজ্ঞান কনটেন্ট-ভিত্তিক প্লাটফর্ম। ২০১৮ সালে ফেসবুক গ্রুপের হাত ধরে বিজ্ঞানপ্রিয়র যাত্রা শুরু। বর্তমানে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির চমৎকার সব প্রামাণিক ইনফোগ্রাফিক তথ্য, ভিডিওচিত্র এবং ম্যাগাজিনসহ সময়োপযোগী নানা স্থায়ী-অস্থায়ী উদ্যোগ বিজ্ঞানপ্রিয়কে পৌঁছে দিয়েছে প্রায় ৭ লক্ষাধিক বিজ্ঞানপ্রেমীর মস্তিষ্কে।

যে কারণে ২৪ ঘন্টার কম সময়ে ঘুরছে পৃথিবী!

বিজ্ঞানপ্রিয় ডেস্ক
২৪ ঘণ্টা

আমরা জানি ২৪ ঘন্টায় ১ দিন পূর্ণ হয়। আসলে ২৪ ঘন্টা নয়, ২৩ ঘন্টা ৫৬ সেকেন্ড। এই সময়ে পৃথিবী নিজ অক্ষকে একবার পূর্ণ আবর্তন করে। কিন্তু কোনো গ্রহেরই ঘূর্ণন গতি সবসময় একই রকম থাকে না। হাজার বছর ব্যবধানে গ্রহের গতি বাড়তেও পারে আবার কমতেও পারে। যেমন ২০২০ এর আগে আমরা গবেষণা করে দেখেছি পৃথিবীতে ১ দিনের দৈর্ঘ্য প্রতি ১০০ বছর অন্তর অন্তর ১.৮ মিলিসেকেন্ড হারে বেড়ে যাচ্ছে। সে অনুযায়ী আজ থেকে ৬০০ মিলিয়ন বছর আগে অর্থাৎ ডাইনোসরেরও জন্মের আগে পৃথিবীতে ১ দিনের দৈর্ঘ্য ছিল ২১ ঘন্টা। আর এখন ২৪ ঘন্টা। উল্লেখ্য, দিনের দৈর্ঘ্য কমে যাওয়ার অর্থ হচ্ছে পৃথিবীর ঘূর্ণন গতি বেড়ে যাওয়া।

কিন্তু ২০২০ থেকে আমরা আবার নতুন তথ্য পাচ্ছি। দিনের দৈর্ঘ্য বরং আবার কমতে শুরু করেছে। পৃথিবীর গতি গত ৫০ বছরের তুলনায় মিলিসেকেন্ড হারে বাড়তে শুরু করেছে।

আরো পড়ুন:
শীতকালে বৃষ্টি এবং পশ্চিমা বায়ুর উপদ্রপ!

কেন ঘটছে এ ঘটনা?

সাধারণত গ্রহের আহ্নিক গতির পরিবর্তন হয় বৈশ্বিক জলবায়ু (Global Climate) এবং গ্রহের ভরের পরিবর্তনের কারণে। গত ১০০ বছরে পৃথিবীর মেরু অঞ্চলের বিশাল মাত্রার বরফ গলে ভরের একটা বিশাল অসামঞ্জস্য সৃষ্টি করেছে। এটা নিঃসন্দেহে একটা ‘ম্যাসিভ চেঞ্জ’। একই কারণে পৃথিবীর দক্ষিণ গোলার্ধ থেকে উত্তর গোলার্ধের দিকে জলের প্রবাহে বিশাল বিশাল জলাধার সৃষ্টি হয়েছে। ফলে ১০০ বছরে আমাদের গ্রহের ভরের একটা উল্লেখযোগ্য ডিসট্রিবিউশন ঘটেছে, যা পৃথিবীর আহ্নিক গতি বেড়ে যাওয়ার একটা কারণ হতে পারে। তবে সুনিশ্চিত করে কিচ্ছু বলা যাচ্ছে না এখনই।

এখন কী তবে দুশ্চিন্তার কারণ আছে?

পৃথিবীর ঘূর্ণন গতির পরিবর্তন হচ্ছে, এটা সত্য। তবে পরিবর্তনটা খুবই ক্ষুদ্র। যা আমাদের দৈনন্দিন জীবনে কোনো প্রভাব ফেলবে না। তবে কিছুটা সমস্যা হতে পারে জিপিএস স্যাটেলাইট-সমূহের ক্ষেত্রে। তাছাড়া স্মার্টফোন, কম্পিউটার ইলেকট্রনিক ডিভাইস (যেগুলো নিখুঁত টাইমিং সিস্টেমের উপর নির্ভর করে)-এর ক্ষেত্রেও শুরুতে অল্প অল্প সমস্যা দেখা দিতে পারে। কিন্তু এই ধরনের সমস্যাগুলি শেষ পর্যন্ত অতিক্রম করা যায়। নির্দিষ্ট সময় পর পর ১ সেকেন্ড যোগ করার পরিবর্তে ১ লিপ সেকেন্ড বিয়োগ করলেই হয়ে যাবে। সুতরাং দুশ্চিন্তার কোনো কারণ নেই।

Total
0
Shares
Leave a Reply

Your email address will not be published.